মুঠোফোনের বা কম্পিউটারের দু-একটা বোতাম চাপলেই পণ্য চলে আসবে আপনার দুয়ারে। শুধু ই-কমার্স নয়, এর বাইরেও ইন্টারনেটে আছে নানা ধরনের ব্যবসা।

আপনার চারপাশেই ছড়িয়ে আছে সেসব ব্যবসার কৌশল। বুদ্ধি করে নেমে যেতে পারেন নতুন কোনো ধারণা নিয়ে। তবে যেকোনো ব্যবসা শুরু করতে চাইলে দরকার নানা ধরনের পরামর্শ। অনেক সময় অফিসের জন্য জায়গা বা কৌশলের অভাবেও অনেকে শুরু করতে পারেন না।
একবার ভাবুন তো! যদি অফলাইনে কাল একটা বিজনেস শুরু করেন, আপনি কী করবেন? কোন এক রাস্তার পাশে পণ্য নিয়ে দাঁড়িয়ে যাবেন? একটা ভাল লোকেশনে দোকান নেবেন, যেখানে লোকজনের আনাগোনা আছে। তাই না?
একটা কসমেটিক্স এর দোকান দিতে চাচ্ছেন, কোথায় দেবেন?
নিশ্চয় পাড়ার ক্যারাম বোর্ডের আড্ডার পাশে, যেখানে বখাটেদের আখড়া তাই না?
লেডি কাস্টমার আসবে?
অনলাইন বিজনেসে কি ভাল একটা দোকান খোঁজেন? মানে কার্যকরি ওয়েবসাইট বানান?
ট্রাফিক এ্যানালাইসি করে টার্গেট অডিয়েন্স বোঝার চেষ্টা করেন? ধুপ করে তো যেখানে সেখানে দাঁড়িয়ে বেচা শুরু করেন।
মানে আপনার শপ লোকেশন নেই, লিফলেট বিলিয়েই যাচ্ছেন, বিলিয়েই যাচ্ছেন… আপনার পেইজ থেকেই সবাই কিনবে? ক’দিন আগেও কিনতো… এখন কেনে না। যার টাকা নেই সে তো দারাজ থেকেও কেনে না।
কিন্তু যার আছে, সে কেন আপনার পণ্য কেনে না? মাথায় এসেছে একবারও?
একটা আইটেমের জন্য আপনার দোকানে ক্রেতা এলে তাকে সেই পণ্য থেকে কন্সান্ট্রেশন সরান না… যেন অন্যটা দেখতে গিয়ে কনফিউশনে কেনাকাটাই বাদ না যায়।
সর্বোচ্চ ফোকাসটা দিতে হেল্প করেন। প্রয়োজন বোঝার চেষ্টা করেন… “আপু আপনি কেমন কোয়ালিটির চাচ্ছেন?” কিংবা “একটা লেটেস্ট কালেকশন আছে, লিমিটেড। দেখবো”? সেই আপনিই, অনলাইনে কী করেন? অফলাইনে যেটা করার এক্সাম্পল দিলাম, সেটাকে বলে ফানেলিং।
যখন সেই নির্দিষ্ট আইটেমটা কেনা হয়ে যায়, বলেন- “এটা দেখতে পারেন… এই নেকলেসটা আপনার দুলের সাথে চমৎকার মানাবে”। এটা আপ সেল। আর লাস্ট পেমেন্টের টাইমে যে লাস্ট পার্সটা লিমিটেড এডিশন বলে বেচার চেষ্টা করেন… সেটা একরকমের ডাউসেল।
যাই হোক। আপনি তো ওয়েবসাইটই বানানোর পক্ষে না, সেলস ফানেলে টাকা এবং সময় খরচ করলে তো আবার রিটার্ন উঠে আসবে। রোজার মাসে চ্যারিটিই করেন তারচেয়ে।
মার্ক সাহেবের ফেসবুক টিম এবং বিনিয়োগকারীরা তো খেয়ে পরে বাঁচুক। ডিরেক্ট প্রোডাক্ট সেল করে ফেলেন, পারলে এ্যাডের মধ্যেই। কোন কল টু একশন লাগবে না।
কোন কনভার্শন ট্র্যাক করতে হবে না। এমনকি কেউ যদি এ্যাডে ক্লিক করে আপনার টাকা কাটানোর পর ফেলে চলে যায়… তাকে রিটার্গেটিংও করতে পারবেন না। ওয়েবসাইট, সেলস ফানেল এবং ট্র্যাকিং না করার বেনিফিট ই আলাদা।
বাই দ্যা ওয়ে, আপনার যাকাতের নিসাব হিসেব করে দেখেছেন…? মানে যা ফেসবুকে দান করছেন… আপনার টার্গেটের থেকে কম দিচ্ছেন না তো!